Wednesday, January 05, 2011

কবিল্লাড়াই

এই কথাটা জলের মতন টলটলে
গাণ্ডু ঢেকে ইস্পাতের ঐ বল্কলে
কবির কূলের কয়টি কুতুব ব্যস্ত যে
কাইজ্যা করায় ফেসবুকের ঐ কলতলে।

দুই আর দুইয়ে চারের এমন অঙ্ক যে
কলতলাতে কেউ ভোগে না সঙ্কোচে
কথার কাঠি চোক্ষা করে সর্বদা
অপর কবির পশ্চাতে বেশ-কম গোঁজে।

দু'যুগ আগে কোন কবিতায় কোন কবি
প্রকাশ করেছিলেন সে কোন সংক্ষোভই
তাই নিয়ে আজ ধুন্ধুমার ঐ কলতলে
করছে লড়াই সেই লোকের এক বান্ধবী।

মিষ্টি হাসি ঝুলিয়ে রেখে পিকচারে
এক কবি হায় অন্য কবির নিক ছাড়ে
ছদ্মবেশে পদ্য লিখে বাঁশ দিয়ে
কলতলার ঐ আকাশ কাঁপায় ধিক্কারে।

আজ যে কবি দিচ্ছে এসে সমর্থন
কাল সে কষে দিচ্ছে চাঁটি ও মর্দন
ভ্যাবলা কবি স্যাঙাৎ খোঁজে লিস্টিতে
স্যাটান ডেকে আত্মা করে সমর্পণ।

এক কবি কয় অন্য কবির সাক্ষাতে
বলব কি আর অমন জগৎবিখ্যাতে?
আবডালে কয় অন্য নিকের ছাল গায়ে
ঘাটতি আছে মূর্খ শালার শিক্ষাতে।

অন্য কবি উত্তরে কয় বিষ তোরই
ঝাড়বো, দাঁড়া জানিয়ে রাখি হিস্টরি
দশটি বছর আগের সে কোন আড্ডাতে
নারীর হাতে থাবড়া খাওয়ার মিস্টরি।

ফাঁস হলো হায় কেচ্ছা কত ঘিনঘিনে
ময়লা কত কোন সে কবির ইনজিনে
সব কবিরই আমলনামায় লালকালি
ওড়নাখানি কেবল ওড়ায় ফিনফিনে।

এমনি করে ঝগড়া বাড়ে ফাঁকতালে
কোবতে লেখার দায়টি হারায় কাকতালে
বনতে কবি চাইলে ঢোকো ঝগড়াতে
দোষ কিছু নেই সেথায় কাদা হাঁটকালে।

ছড়ার শেষে বলছি বড়ই ক্রোধ করি
কাক ও কবির সকল দেনা শোধ করি
কাউয়া দোরা সাজলে কবি আজ তবে
ভীষণ রকম ঘেন্না নিজে বোধ করি।

1 comment:

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।