Friday, November 30, 2007

ঈস্টার দ্বীপ ০০

জ্যারেড ডায়মন্ডের "গানস, জার্মস অ্যান্ড স্টীল" আমার হাতে পড়েছিলো গত বছর। এই একটা বই পড়েই আমি তাঁর লেখার বেজায় ভক্ত হয়ে পড়ি। এ বছরের শুরুর দিকে হাতে পাই কোল্যাপ্স। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভৌগলিক অবস্থানে বিভিন্ন আকারের সমাজের টিকে থাকার সাফল্য বা ব্যর্থতা নিয়ে লেখা বইটা।

এবার সিস্টেমটেখনিক নামে এক বদখদ কোর্স করতে গিয়ে আবারও ডায়মন্ডের শরণাপন্ন হয়েছি। একটা গবেষণা-বক্তৃতা দিতে হবে সিম্যুলেশনসহ। সিস্টেম হিসেবে বিভিন্ন জিনিস বেছে নেবার সুযোগ থাকলেও কেন যেন সবার আগে ঈস্টার দ্বীপে সামাজিক ক্ষয়ের প্রসঙ্গটাই মাথায় এলো আগে। তিনজন করে গ্রুপ করতে হবে, মূহুর্তের মধ্যে দেখলাম এ ওর সাথে গ্রুপ করে ফেললো, যাকেই জিজ্ঞেস করি সে-ই খুব গর্বিত ভঙ্গিতে আরো দু'জনকে দেখিয়ে দেয়। শেষমেশ ওলাফ আর ক্রিস্তোফকে পাওয়া গেলো, ওলাফ প্যারাসিটামল খাচ্ছিলো বলে গ্রুপ করার সেই মোক্ষমকাল ফসকে গেছে, আর ক্রিস্তফ কফি খেতে নিচে চলে গিয়েছে বহু আগেই। ঈস্টার দ্বীপের কথা বলতেই রাজি হয়ে গেলো দু'জন চট করে। ক্রিস্তফ অবশ্য জেনেটিকস নিয়ে আগ্রহ দেখাচ্ছিলো, কিন্তু জেনেটিক সিস্টেমকে বর্ণণা করার হ্যাপা পোহাতে চাই না আমরা কেউ।

রেফারাটকে গবেষণা-বক্তৃতা বলা যেতে পারে কি না তা নিয়ে তর্ক চলতে পারে, মোদ্দা কথা হচ্ছে কোন একটা কিছুর ওপর নিজস্ব বিশ্লেষণের পর সেটা নিয়ে এক দফা বক্তৃতা দিতে হবে, এ কাজে প্রেজেন্টেশন, চক-ব্ল্যাকবোর্ড, স্ক্রিপ্ট এসবের সাহায্য নেয়া যেতে পারে। আমাদের গবেষণার মূল ব্যাপারটা প্রফেসর প্রীসকে বুঝিয়ে বলতে তিনি বেশ উৎসাহ দেখালেন, তবে ক্রিস্তফ শুরুতেই আমাকে দেখিয়ে বললো, আইডিয়া ওর, কাজেই ও ব্যাখ্যা করবে। আমি এ ব্যাপারে এখনও একজন মূর্খ। প্রফেসর প্রীস এক ভয়াল হাসি দিয়ে বললেন, আচ্ছা! তাহলে একটু ব্যাখ্যা করুন দেখি! অনেক ত্যানা কচলানোর পর তিনি রাজি হলেন, পাশাপাশি জানালেন একটা সিম্যুলেশন আগামী হপ্তায় পারলে করে ফেলতে।

আবারও ঘাঁটতে হচ্ছিলো বইটা, আবারও পড়ে মুগ্ধ হলাম। ডায়মন্ড পাঠককে প্রশ্ন করতে উৎসাহী করেন, একটা কৌতূহল ফেনিয়ে তোলেন পাঠকের মনে, তারপর রয়েসয়ে সেটার জবাব দেন। তাঁর ভঙ্গিটিই দারুণ।

ছবি: ঈস্টার দ্বীপ

পড়তে পড়তে মনে হচ্ছিলো, ঈস্টার দ্বীপের মূর্তিগুলির রহস্য আর সেই সমাজের ধ্বস নিয়ে সচলে কেন লিখি না? উত্তরটাও আমি জানি, সময় পাচ্ছি না হাতে একদম। নাওয়াখাওয়া লোকে ভুলে যায়, আমাকে এ হপ্তায় এক বেলা হাগা কামাই দিতে হয়েছে ক্লাস করার জন্যে।

[]

No comments:

Post a Comment

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।