Saturday, August 11, 2007

শহরের ছবি

সচলায়তনে পূর্বপ্রকাশিত।



দিগন্ত বিস্মরণ বা হরাইজন অ্যামনেশিয়া বলে একটি শব্দ মুদ্রণ করেছেন আমার প্রিয় লেখক জ্যারেড ডায়মন্ড। কোন জায়গায় কেউ যখন বাস করে, তখন তার চারপাশে খুব ধীরগতির পরিবর্তনগুলোর সাথে সে নিজেকে খাপ খাইয়ে নেয়। ফলে অনেক বছর পর তার দিগন্তরেখা পাল্টে গেলেও সে সহসা তা টের পায় না। হয়তো দূরে কোন একটা গাছ ছিলো দিগন্তরেখায়, হয়তো ছিলো একটা বা দু'টো বাড়ি, সেখানে হয়তো আজ সারি সারি দালান। কিন্তু যে অনেক বছর পর সে জায়গায় ফিরে আসবে, তার স্মৃতিতে থাকবে অতীতের দিগন্তরেখা। ফলে এই পরিবর্তিত দিগন্ত তার চোখে ঠেকবে। এই তুলনামূলক বিস্মরণকেই ডায়মন্ড দিগন্ত বিস্মরণ বলেছেন।

ঢাকা শহর (বা দেশের যে কোন শহর) এতো বিস্ময়কর দ্রুত গতিতে পাল্টে যাচ্ছে যে বাসিন্দারাই অবাক হয়ে যাচ্ছেন। দিগন্ত বিস্মরণের সুযোগ পাচ্ছেন না কেউ। আজ হয়তো ছিলো একটা ঝিল, মাস দুয়েক পরে সেখানেই নির্মাণাধীন বহুতল ভবন। আজ হয়তো ছিলো বাইশ তলা দালান, মাসখানেক পর সেখানে ছয়তালা টিকে আছে শুধু। ওদিকে চাটগাঁ আর সিলেটে পাহাড় কাটা পড়ছে, সবুজ মুছে যাচ্ছে বগুড়ায়, রাজশাহীতে হয়তো ভেঙে ফেলা হচ্ছে পুরনো দালান, শহর বাড়ছে, পাল্টাচ্ছে দাবানলের মতো।

এই শহরগুলোর পুরনো ছবি সংগ্রহ করলে কেমন হয়? তারা কেমন ছিলো বহুবছর আগে? '৬০, '৭০, '৮০, '৯০ এর দশকে?

আমাদের সবার কাছেই কিছু না কিছু ছবি আছে পারিবারিক সংগ্রহে। শহরের দৃশ্যপট। এ ছবিগুলো সংরক্ষণের প্রয়োজন আছে। অতীতের এক একটা টুকরো জোড়া লাগিয়ে আমরা হয়তো ভবিষ্যতে সন্ততিকে দেখাতে পারবো, কেমন সবুজ ছিলো নীলক্ষেতের মোড়, কেমন নির্জন ছিলো পাহাড়তলির চারপাশ, পাঠানটুলার গলিটা কেমন ঝিমিয়ে পড়তো দুপুরে ...।

আপনাদের পরামর্শ জানান।



[]

No comments:

Post a Comment

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।