Friday, July 06, 2007

কোথায় লিবী, আর কোথায় লবী



লুইস লিবীকে ৩০ মাসের জেল, আড়াই লাখ ডলারের জরিমানা করেছে মার্কিন আদালত, সেই সাথে মুক্তির পর আরো দু'বছর তত্ত্বাবধানের আওতায় থাকার নির্দেশ। লিবীর আপিল খারিজ করে দিয়েছে ডিস্ট্রিক্ট অব কলাম্বিয়ার ফেডারেল আপিল আদালত। কিন্তু কপাল ভালো তার, খোদ প্রেসিডেন্ট জর্জ ওয়াকার বুশ ছুটে এসেছে তার পেছনটা বাঁচাতে। মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিশেষ ক্ষমতা বলে লিবীকে কারাবাসের ঝামেলা পোহানোর হাত থেকে বাঁচিয়ে দিয়েছে লিবীকে। চন্দ্রসূর্য সাক্ষী রেখে প্রেসিডেন্ট বলেছেন, আদালতের এই রায় বড় বাড়াবাড়ি (EXCESSIVE)। লিবী দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজার চারশো ডলার জরিমানা চুকিয়ে দিয়েছে।


লুইস লিবী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপরাষ্ট্রপতি ডিক চেনির রাজনৈতিক চীফ অব স্টাফ ছিলো, ছিলো উপরাষ্ট্রপতির জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক সহকারী, ছিলো ২০০১ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট বুশের সহকারী। ফেডারেল আদালতে তার বিরুদ্ধে পাঁচটি অভিযোগ ওঠে এক বিশেষ অনুসন্ধানের সময়। পাঁচটি অভিযোগের মধ্যে চারটিতে লিবী দোষী সাব্যস্ত হন; ন্যায়বিচারের কাজে বাধা প্রদান, শপথভঙ্গ ও অনুসন্ধানীদের কাছে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপনের দায়ে আদালত তাঁকে সাজা দেন। লিবীর ব্যাপারে প্রেসিডেন্ট বুশের স্ববিরোধী আচরণ নিয়ে আরো পড়তে পারেন এখানে



ওদিকে আমাদের ক্রিকেট বোর্ডের প্রাক্তন অধ্যক্ষ সাংসদ আলী আসগার লবীকে আদালত আয়কর ফাঁকি এবং করসংক্রান্ত তথ্য গোপনের অপরাধের সাজা হিসেবে আট বছরের কারাদন্ড, ২৫ লাখ টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদন্ড দিয়েছেন। লবীর আইনজীবীরা জানিয়েছেন, তাঁরা উচ্চ আদালতে আপিল করবেন। আমরা এ ভরসা করতে পারি যে আমাদের বৃদ্ধ প্রেসিডেন্ট ইয়াজউদ্দিন আহমেদ লবীর কারাদন্ড মকুফ করে দেবেন না বা দিতে পারবেন না।


সময় গেলে সাধন হবে না।

ছবিসূত্রঃ বব গোরেল।


No comments:

Post a Comment

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।