Wednesday, March 21, 2007

ঝাল নিয়ে কথা



রাস্তার গুণাগুণের মানামান নিয়ে তো অনেক বকলাম৷ এবার ঝাল৷

ঝালে ঝালে তুলনা করতে গেলেও লাগবে শিব্রামের অঙ্ক সাহিত্যের যোগফল৷ কত ঝাল? ঝালের একক কী হতে পারে?

রাস্তার গুণকে যেমন বেতের বাড়ির এককে মাপা যায়, ঝালকেও তেমনি মাপা যায় মাইলেজে৷ গল্প বলি শুনুন৷


এক কাবুলি তার গাধা নিয়ে এক বাঙালি ডাক্তারের কাছে হাজির৷ গাধার বিমার হয়েছে, নড়তে চড়তে চায় না৷ ডাক্তার তো চটে আগুন, এতোবড় সাহস, গাধার অসুখ হলে তার কাছে নিয়ে আসা! কিন্তু কাবুলি নাছোড়বান্দা, আদমি আর গাধার জন্য দুরকম চিকিত্‍সা কেন লাগবে বুঝতে সে নারাজ৷ শেষমেশ ডাক্তার বুঝলেন, কাবুলির জন্য যা খাটে, তা গাধার জন্যও খাটবে, এমন কি ঊনিশ বিশ? তিনি বার করলেন এক বাঙালি খাটো মরিচ৷ কাবুলির হাতে দিয়ে বললেন, তিরিশ মাইল৷

কাবুলি তো কিছুই বুঝলো না৷ ডাক্তার সব জল করলেন ভেঙে৷ বললেন, মরিচটা ভেঙে গাধার পাছায় গুঁজে দাও৷ গাধা তিরিশ মাইল দৌড়ুবে ঘন্টায়৷

কাবুলি ডাক্তারকে লম্বা সেলাম ঠুকে বেরিয়ে এসে তা-ই করলো৷ পাছায় গুঁজে দেয়া মাত্র গাধা বিকট এক চিত্‍কার করে দিলো দৌড়৷ কাবুলি গাধার পেছনে ছুটতে গিয়ে হয়রান হয়ে শেষমেশ আবার ডাক্তারের কাছেই ফিরে এলো৷

বৃত্তান্ত শুনে ডাক্তার আরেকটা মরিচ বার করলেন৷ এটা নাগা মরিচ, পূর্ব ভারতের ইশপিশাল৷ কাবুলির হাতে দিয়ে বললেন, পঞ্চাশ মাইল৷

কাবুলি কিছুই বোঝে না৷ আবার ডাক্তারকে ভেঙে জল করতে হয়৷ বললেন, এটা ভেঙে নিজের পাছায় গুঁজে গাধার পেছন পেছন ছোটো৷ পাকড়াও করতে পারবে৷


সেই থেকে কাবুলি খেতে বসে হামখোরাক [মানে যার সাথে খেতে বসা আরকি, ইনজিরিতে যাকে বলে কনভাইভ না কী যেন, বাংলা করলে দাঁড়ায় সহভোজী] লোকজনকে শুধায়, হাতে ওটা কী, মরিচ নাকি? কত মাইল?


No comments:

Post a Comment

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।