Sunday, November 12, 2006

দুর্নীতির গণিত ০৩

এর আগে দুর্নীতির বিস্তার পরিমাপ নিয়ে একটি গাণিতিক মডেল আলোচনা করেছিলাম, আর চায়ের সাথে টা হিসেবে তিনটি বিশেষ ক্রম আলোচনাও হয়েছিলো। এখন বলি দ্বিগুণায়ুর কথা। দ্বিগুণায়ু বা Double Life হচ্ছে সেই সময়টুকু, যে সময়ে গিয়ে দুর্নীতির জনঘনত্বের মান আদি দুর্নীতির জনঘনত্বের দ্বিগুণ হয়ে দাঁড়াবে।


দ্বিগুণায়ু হিসেব কষে বার করা জটিল কিছু নয়, তাই বার করে দেখালাম তিনটি ক্রমের জন্য। দ্বিগুণায়ুকে সূচিত করছি T দিয়ে। ০, ১ ও ২-ক্রম বিস্তারের জন্য সে ক্রমটিকে সাবস্ক্রিপ্টে ঠাঁই দেয়া হলো।




এখন যা করতে হবে, তথ্য উপাত্ত বসিয়ে দেখতে হবে, গত ৫, ১০ বা ১৫ বছরে আমাদের দেশে বিভিন্ন পর্যায়ে দুর্নীতির জনঘনত্ব কোন ক্রম ধরে বেড়েছে। বেশ শ্রমসাধ্য ব্যাপার, তাই অন্য কারো হাতে মশাল দিতে চাই।


5 comments:

  1. ha ha ha...
    Reverse of half life (i.e., radio active decay)...very funny!
    Koto bochhore digun hobe ta gonona korar jonno himu dhrubok er maan lagbe.
    k = ?
    To calculate k you can base it on some known numbers such as 6000 crore taka in power sector to begin with. And then add 400 crore taka in autorickshwa, and keep adding....(all in 5 years)

    ReplyDelete
  2. ধর তোমার হিসেবে ১০ বা ২০ রছরে দেশের সব লোক দুর্নীতিবাজ হয়ে যাবে। কিন্তু সাধারন বিবেচনা বলে সেটা অসম্ভব। তাই তোমার এপ্রোচে কিছু ফাঁক আছে বলে আমি মনে করি।

    আমি ঠিক মতো লক্ষ্য করিনি: জনসংখ্যা বৃদ্ধি বা কতবয়সের জনতা দুর্নীতিবাজ হবে এসমস্ত ফ্যাক্টর কি হিসাবে এনেছ?

    ReplyDelete
  3. ও হ্যাঁ জনসংখ্যা বৃদ্ধির ব্যাপারটা তো মূল সুত্রেই আছে। তার মানে একসময় ১/২ বছরের বাচ্চাও দুর্নীতিবাজ হয়ে যাবে?

    ReplyDelete
  4. দারুণ পয়েন্ট!

    কিন্তু দ্যাখো, দুর্নীতির জনঘনত্ব কিভাবে ডিফাইন করা হয়েছে। দুর্নীতিকৃত টাকাকে ভাগ করা হচ্ছে উপার্জনক্ষম জনসংখ্যা দিয়ে। কাজেই ন্যাদা বাচ্চারা বাদ পড়ে যাবে। আর দেশের সব লোক কখনোই দুর্নীতিবাজ হবে না, কারণ সেটা সম্ভবো না, আফটার অল, কয়টা খেটে খাওয়া মানুষ দুর্নীতি করে বা করতে চায়? কিন্তু বাড়বে দুর্নীতির জনঘনত্ব, যেটার নিউমারেটর হিসেবে আছে টাকা। অর্থাৰ, দুর্নীতিবাজ বাঞ্চোৎগুলি আরো বেশি দুর্নীতি করবে।

    আর সবসময় একই ক্রম ধরে দুর্নীতি এগোবে না। থোক হিসাবে ধরলে ৫ বছরের ইন্টারভ্যালে ভাগ করে করে দেখতে হবে। কখনো হয়তো ক্রম নেমে আসবে ১ এ, কখনো হয়তো চড়ে বসবে ৩ এ।

    কিন্তু ইন্টারেস্টিং ব্রেইনস্টর্মিং করা যাবে। দুর্নীতির একটা ফ্লো নেটওয়ার্ক দেখি সাজাতে পারি কি না। সিমুলেশন করে পরে দেখা যেতে পারে, আমার মডেল কতটা বাস্তবঘেঁষা। শেষমেশ অল্প কিছু বদমাইশকে নিয়েই তো কাজ, দেশের বাকি মানুষ তো দুর্নীতির শিকার।

    ReplyDelete
  5. থিউরী ভাল হইছে। ট্রান্সপারেন্সী ইন্টারন্যাশনালে চাকুরী নিলেন কবে?

    ReplyDelete

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।