Friday, November 10, 2006

ইয়াজকিউলিস, ধর্ষিতা ইমরানা আর জিদানের প্যান্ট


অশীতিপর এখনও হন নি শ্রদ্ধেয় ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ, কিন্তু খুব বেশিদিন বাকিও নেই তা হতে৷ পৃথিবীর ইতিহাসে হেপ্টাজেনারিয়ান রাষ্ট্রনায়ক যাঁরা ছিলেন, তাঁদের সাথে তাঁর পার্থক্যগুলি নিয়ে আগেও কয়েক দফা লিখেছি৷ এখন সবচেয়ে বড় তফাত্‍ এসে দাঁড়িয়েছে অন্য জায়গায়৷ তিনি এখন রাষ্ট্রপতি, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান, এবং তেরোটি পোর্টফোলিওর হর্তাকর্তা৷ হারকিউলিয়ান টাস্ক বললেও কম হয়ে যায়, তাই বাধ্য হয়ে আমার এই কয়েনেজ, ইয়াজকিউলিস

কিন্তু একজনকে এত দায়িত্ব সামলাতে গেলে মাঝে মাঝে প্যাঁচঘোঁচ লেগে যাওয়া স্বাভাবিক৷ এই দ্বান্দ্বিক পরিস্থিতিটি বোঝা যেতে পারে ধর্ষিতা ইমরানা বিবির ঘটনা থেকে৷ তার শ্বশুর হতভাগাই তাকে ধর্ষণ করে৷ "শরিয়া আইন" এর কান্ডারীরা রায় দেয়, এই ঘটনার ফলে এখন ইমরানার শ্বশুরই তার স্বামী, তার স্বামী এখন তার পুত্র৷ কাজেই শ্বশুরের ঘাড়ে বর্তায় ইমরানাকে বিয়ে করার গুরু দায়৷ বাংলাদেশেও নির্বাহী ক্ষমতা যেন এক ইমরানা বিবি৷ কে যে তার স্বামী আর কে যে তার শ্বশুর, কে কখন তাকে চিত্‍কাত করে প্রবিষ্ট হচ্ছে, বোঝা ভার৷ আমাদের আরো ধন্ধ লেগে যায়৷

আরো কষ্ট বাড়ে জিদানকে আবাহনী-মোহামেডানের ম্যাচে না ঘরকা না ঘাটকা হয়ে খেলতে দেখে৷ ফুলপ্যান্ট আর কেডস পরেই মাঠে নেমে পড়েন গুরু৷ ফল যা ফলবার, নাগালে বল এলেই প্যান্ট কোমর ছেড়ে অধঃপতিত হতে চায়৷ বল না প্যান্ট, কোনটা খোয়াবেন ভেবে পান না জিদান৷ তার এই অদ্ভূত কীর্তি দেখে আবাহনী মোহামেডানের খেলোয়াড়রাও চটে ওঠে, তাকে আর পাস দেয় না, নিজেরাই খেলতে থাকে প্রাণপণে৷ কেউ চায় না, বল পাস পেয়ে তার ওপর কারিকুরি করতে গিয়ে জিদান প্যান্টটা খোয়াক৷ সাংবাদিক দুষ্টুরা আবার কী তথ্য সন্ত্রাস করে বসে কে জানে৷

জিদানকে সেদিন বার বার জার্সি বদল করতে দেখে কীসব আবছা সত্য যেন স্পষ্ট হয় আমার কাছে৷ পল্টিবাজির ফল ভালো নয়৷ খেলতে গেলে খেলোয়াড়ের মতো খেলতে নামা উচিত৷ বলও খেলবো প্যান্টও পরে থাকবো, তা হবে না৷ আপনারা বলতে পারেন, জিদান তো পারলো৷ আমি বলবো, পারেনি৷ জিদান মিনিট দশেক ভুগে মাঠ ছেড়ে পালিয়েছে পুলিশের প্রহরায়৷ প্যান্ট সামলানোর জন্যই৷

এলোমেলো ছবিগুলি হাতে নিয়ে বসে থাকি৷ আনমনে নাড়াচাড়া করি৷ জানি, টুকরোগুলি বসিয়ে দিলে যে ছবিটা চোখের সামনে দেখবো তা দেখতে চাই না৷ তাই প্রার্থনা করি, সব সংকটের অবসান হোক৷


No comments:

Post a Comment

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।