Monday, October 23, 2006

... সখী, ভালোবাসা কারে কয়?


আবারও আজিমভের অনুবাদ নিয়ে জ্বালাতে আসলাম৷ কী করি, কিছু লিখতে হাত চুলকায়, কিন্তু কিছুই বেরোয় না৷ ব্লগাংসু মন নিয়ে তাই পুরনো লেখা তুলে দেই৷

এ গল্পটা আজিমভের 'হোয়াট ইজ দ্যাট থিং কল্ড লাভ?' গল্পের ছায়াবলম্বনে লেখা৷ মার্চ ২, ২০০৩৷

-----------------------------------

১.

'কিন্তু এগুলো তো দু'টো ভিন্ন প্রজাতি৷' অধিনায়ক জিগলু নিচের গ্রহ থেকে ধরে আনা প্রাণী দু'টোকে খুঁটিয়ে দেখতে দেখতে বললেন৷ তাঁর আলোকসংবেদী প্রত্যঙ্গগুলো মাথা ছেড়ে বেরিয়ে এলো, সেগুলোর ওপরে বিভিন্ন রঙের ছোপ জ্বলজ্বল করতে লাগলো৷ অর্থাত্‍ তাঁর মনোযোগ এখন অনেক বেশি৷

ভোন্দলের খুবই আরাম রাগছে আবার পুরনো অভ্যাসে ফিরে যেতে৷ মাসের পর মাস এই গ্রহে ছদ্মবেশে লুকিয়ে থাকতে হয়েছে তাকে, গ্রহের বাসিন্দাদের বিদঘুটে শব্দের অর্থ উদ্ধার করতে গিয়ে খবর হয়ে গেছে তার৷ এখন আবার সেই আলোর ঝলকানির মাধ্যমে আলাপচারিতায় ফিরে যেতে পেরে চরম স্বস্তি বোধ করছে ভোন্দল৷ যদিও এখন সে অনেক দূরের গ্যালাক্সিতে, তবুও যেন মনে হচ্ছে, সে বাড়ি ফিরে এসেছে৷

'না স্যার, দু'টো প্রজাতি নয়৷ একই প্রজাতির দু'টি ভিন্ন রূপ৷' বললো সে৷

'কী যে বলো! দু'টো জীব দেখতে দু'রকম৷ কেমন যেন, চ্যাপ্টা বাক্সের মতো .. .. তবে উনাকে হাজার শোকর, অন্যান্য প্রাণীগুলোর মতো অত বিদঘুটে নয়৷ মোটামুটি চলে, হাতপাগুলো আলাদা করে চেনা যায়৷ অবশ্য কোন রঙের ছোপ নেই .. .. আচ্ছা, এরা কি কথা বলতে পারে?'

'জ্বি, মহামান্য অধিনায়ক৷' ভোন্দল পর পর সাত রঙের বিচ্ছুরণ দিয়ে বুঝিয়ে দিলো, ব্যাপারটা তার পছন্দ নয়৷ 'আমার রিপোর্টে সব খুঁটিনাটি লেখা আছে৷ এরা গলা আর মুখের সাহায্যে শব্দ উত্‍পাদন করে, অনেকটা কাশির মতো৷ আমি নিজেও সেরকম করতে শিখেছি৷' বেশ গর্বিত মনে হলো তাকে৷ 'কাজটি অত্যন্ত জটিল৷'

'বলো কী? আমার তো গা গুলাচ্ছে৷ আচ্ছা, এর জন্যেই তাহলে এদের চোখ এমন চেপ্টা, গর্তে বসানো, হ্যাঁ? অবশ্য আলো দিয়ে কথা বলতে না পারলে চোখেরই বা কাজ কী থাকে, দেখা ছাড়া? যাই হোক, তুমি কেন বলছো এরা দু'টি একই প্রজাতি? বাম দিকের প্রাণীটার আকার ছোট, রোঁয়ার মতো জিনিসগুলো বড় বড়, আর শরীরটাও ভিন্ন অনুপাতে গড়া৷ দেখো, এর যেখানটা উঁচু, অন্য জীবটার সেখানটা সমতল৷ এরা কি জ্যান্ত?'

'জীবিত, তবে এই মূহুর্তে অচেতন, মহামান্য অধিনায়ক৷ ভয় দমন করে রাখার জন্যে তাদেরকে বিশেষ মনোচিকিত্‍সা দেয়া হয়েছে, যাতে তাদের সুষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করা যায়৷'

'কিন্তু এদেরকে অত সুষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করাটা কি অত জরুরি? আমরা কিন্ত পিছিয়ে পড়েছি .. .. এদের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আরো অন্তত পাঁচটা প্রাণীজগত্‍ আছে আশেপাশে, আমাদের সেগুলো পর্যবেক্ষণ করা উচিত৷ সময়স্থাণুতা বজায় রাখা খুব খরচের ব্যাপার, জানো তো৷ এদেরকে নিজের জায়গায় ফিরিয়ে দিয়ে আমি সামনে বাড়তে চাই৷'

কিন্তু ভোন্দলের ভেজা ভেজা থলথলে শরীরটা কেঁপে উঠলো, খুবই উত্‍কন্ঠার মধ্যে আছে সে৷ তার মোটা জিভটা বেরিয়ে এসে চ্যাপ্টা নাকের ওপর কুন্ডলী পাকিয়ে রইলো, আর চোখগুলো ফিরে গেলো কোটরের ভেতরে৷ সে তার তিন আঙুল ওয়ালা হাত নেড়ে মানা করতে লাগলো, আর আলোর সঙ্কেতে কথা বলতে বলতে তার চোখের ওপরের ছোপগুলো হয়ে গেলো গাঢ় লাল৷

'উনি আমাদের রক্ষা করুন, মহামান্য অধিনায়ক, কিন্তু এই প্রাণীজগতের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আর কিছু আশেপাশে এখন নেই! আমাদের সামনে চরম দুঃসময় আসতে পারে৷ এই প্রাণীগুলো এই গ্যালাঙ্রি সবচেয়ে বিপদজনক প্রাণী হতে পারে, স্যার .. .. শুধুমাত্র এই কারণে যে এদের দু'টি ভিন্ন রূপ রয়েছে৷'

'তোমার কথা ধরতে পারছি না৷'

'মহামান্য অধিনায়ক, আমার কাজ ছিলো এই গ্রহটির ওপরে গবেষণা করা৷ খুবই ঝামেলার একটা কাজ, কারণ এই গ্রহের রকমসকমই আলাদা৷ এমনই আলাদা যে আমি এর কাজকারবার ঠিকমতো বুঝতেই পারিনি৷ যেমন ধরেন, এই গ্রহের প্রায় প্রতিটি প্রাণীরই দু'টি ভিন্ন রূপ রয়েছে৷ ব্যাপারটা বোঝানোর জন্যে আমি কোন শব্দই খুঁজে পাচ্ছি না৷ ধরা যাক, এরা হচ্ছে প্রথম রূপ আর দ্বিতীয় রূপ৷ আর যদি এদের শব্দে শুনতে চান, তাহলে ঐ ছোট প্রাণীটিকে বলা হয় 'নারী', আর বড়টিকে বলা হয় 'পুরুষ৷' বুঝতেই পারছেন স্যার, এই প্রাণীগুলো নিজেদের এই তফাত্‍ সম্পর্কে ওয়াকেবহাল৷'

জিগলু শরীর কুঁচকালেন৷ 'কী জঘন্য!'

'শুধু তাই না, মহামান্য অধিনায়ক, নূতনের সৃষ্টির জন্যে এই দু'টি রূপকে পারস্পরিক সহযোগিতা করতে হয়৷'

অধিনায়ক জিগলু সামনে ঝুঁকে চেহারায় একই সাথে আগ্রহ এবং বিতৃষ্ণা নিয়ে জীব দু'টিকে খুঁটিয়ে দেখছিলেন, এই কথা শুনে তিনি ঝটিতে সোজা হলেন৷ 'পারস্পরিক সহযোগিতা? কী আবোলতাবোল বকছো তুমি? প্রত্যেক প্রাণীই তার নূতনের জন্ম দেয় নিজের সাথে সবচেয়ে অন্তরঙ্গ যোগাযোগের মাধ্যমে, এর চেয়ে বড় কোন গুণ প্রাণের থাকতে পারে না! যদি তা না-ই হয়, প্রাণের তবে মূল্য কী?'

'এদের একটি রূপ সে কাজটিই করে, তবে অন্য রূপটিকে এ ব্যাপারে অবশ্যই সহযোগিতা করতে হয়৷'

'সেটা আবার কেমন করে?'

'সেটা বোঝা বেশ ঝামেলার ব্যাপার৷ বেশ ব্যক্তিগত একটা ব্যাপার৷ আর আমি যেসব তথ্য বা প্রমাণ খুঁজে পেয়েছি, সেগুলোর কোথাও সঠিক বর্ণণাটি খুঁজে পাওয়া যায়নি৷ তবে আমি ব্যাপারটা বিশ্লেষণ করে বের করে ফেলেছি৷'

জিগলু মাথা নাড়লেন৷ 'কী সব ফালতু কথা! কুঁড়ির জন্ম দেয়াই এ বিশ্বে সবচেয়ে পবিত্র, সবচেয়ে ব্যক্তিগত ক্রিয়া৷ হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ গ্রহে সেটাই ঘটে থাকে৷ আমাদের আলোককবি কুঝিকঝিক কী বলেছেন দেখোনি? "কুঁড়ি ফোটার সময়, ওরে কুঁড়ি ফোটার সময়, ওরে, মিষ্টি লক্ষ্মী কুঁড়ি ফোটার সময় যখন আসে .."৷'

'অধিনায়ক, আপনি বুঝতে পারছেন না৷ এই প্রাণী দু'টির সহযোগিতার ফলে এদের একটি মিশ্রণ উত্‍পন্ন হয়, যদিও আমি জানি না সেটা ঠিক কীভাবে ঘটে৷ এভাবেই এদের জগতে নতুন নতুন বৈশিষ্ট্য নিয়ে প্রাণীগুলো জন্মায়৷ আমাদের কুঁড়ি ফোটার ক্ষেত্রে সামান্য পরিবর্তন ঘটতে হাজার বছর লেগে যায়, আর এদের এখানে এই পরিবর্তন ঘটে প্রতিটি নূতনের জন্মের সময়৷ এর ফলে এদের বৈচিত্র্য অনেক বেশি৷'

'তুমি কি বলতে চাও এই প্রাণীগুলোর একটি রূপের অংশ আরেকটি রূপের অংশের সাথে মিশ্রিত হয়? তুমি কি জানো এটা কত বড় একটা ফালতু কথা? এটা কি আদৌ সম্ভব? আমাদের শরীরবিজ্ঞান কী বলে?'

'কিন্তু সেটাই ঘটে৷' ভোন্দল জিগলুর কটমটে দৃষ্টির সামনে সংকুচিত হয়ে দাঁড়ালো৷ 'এদের বিবর্তন ঘটে খুব দ্রুত৷ এই গ্রহে তো জাতি প্রজাতি গিজগিজ করছে৷ বারো লাখেরও বেশি প্রজাতি এ পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া গেছে৷'

'বারোটার বেশি হবে না৷ এখানকার গাঁইয়া প্রাণীগুলোর নিজস্ব তথ্য নিয়ে নাচলে তো চলবে না, নিজেদেরও চোখ কান খোলা রাখতে হবে৷'

'আমি এরকম ছোট জায়গার মধ্যেই কয়েকশো প্রজাতি দেখেছি, মহামান্য অধিনায়ক৷ এদেরকে অল্প একটু জায়গা আর অল্প একটু সময় দিলে এরা আরো নতুন নতুন প্রজাতির জন্ম দিতে থাকবে৷ একদিন দেখা যাবে এরা আমাদের মেরেধরে ভাগিয়ে দিয়ে এই গ্যালাক্সি শাসন করছে৷'

'তাহলে এই "সহযোগিতার" ব্যাপারটা তুমি প্রমাণ করো, পরিদর্শক৷ তাহলে হয়তো আমি তোমার কথায় পাত্তা দেবো৷ আর যদি সেটা করতে না পারো, আমি ধরে নেবো তুমি চাপা মারছো৷ সেক্ষেত্রে আমরা সাথে সাথে অন্য গ্রহের দিকে রওনা দেবো৷'

'আমি প্রমাণ দিতে পারবো!' ভোন্দলের আলোর ঝলক হলদে সবুজ রঙ ধারণ করলো৷ 'এই প্রাণীরা আরো একটি দিক দিয়ে স্বতন্ত্র৷ এরা ভবিষ্যতের অনেককিছু অনুমান করে নিতে পারে, খুব সম্ভবত তাদের প্রতিনিয়ত পরিবর্তনের পরিণাম হিসেবে৷ এরা এমন সব মহাকাশ যাত্রা নিয়ে সাহিত্য রচনা করে, যা তারা এখনো তৈরি করতে পারে নি৷ এই ধরনের সাহিত্যকে তারা বলে "সায়েন্স ফিকশন"৷ আমি এই ধরনের রচনা নিয়ে বিশেষ গবেষণা করেছি৷ আমার বিশ্বাস, তারা তাদের বিপদজনক দিকটা এই ধরনের সাহিত্যের মাধ্যমে প্রকাশ করে ফেলবে৷ আর এই সায়েন্স ফিকশন থেকেই আমি তাদের এই পারস্পরিক সহযোগিতার ব্যাপারটি জেনেছি৷'

'কীভাবে?'

'এই গ্রহে একটি সাময়িকী রয়েছে, যেটি এমন কিছু সায়েন্স ফিকশন প্রকাশ করে, যেটি মূলত এই সহযোগিতার নানা ভঙ্গির ওপর জোর দিয়ে থাকে৷ অবশ্য বিরক্তিকর ব্যাপার হচ্ছে, এতে পুরোপুরি খোলাসা করে কিছু বলে না, কেবল আকার ইঙ্গিতে কাজ সারে৷ আমাদের আলোকভাষায় এই পত্রিকার নামটিকে অনুবাদ করা যেতে পারে "ক্রীড়াবালক" হিসেবে৷ যে জীবটি এই সাময়িকীর দায়িত্বে রয়েছে, সে কেবল এই সহযোগিতার ব্যাপারটিতেই আগ্রহী, আর এ ব্যাপারে সে এমন বিজ্ঞানসম্মত ও নিয়মতান্ত্রিক কার্যকলাপ পরিচালনা করে যে আমি অত্যন্ত বিস্মিত হয়েছি৷ তার সায়েন্স ফিকশনগুলোতে এই সহযোগিতার কিছু উদাহরণ আমি খুঁজে পেয়েছি এবং সেটি অনুসরণ করে সামনে এগিয়েছি৷ .. .. আর মহামান্য অধিনায়ক, আপনার দোহাই লাগে, এই সহযোগিতার ব্যাপারটি আপনার চোখের সামনে ঘটে যাবার পর যখন প্রাণী দু'টি তাদের নূতনের জন্ম দেবে, এই গ্রহটির একটি কণার অস্তিত্বও যেন আর না থাকে৷'

'আচ্ছা ঠিক আছে,' চিন্তিত ভঙ্গিতে বললেন জিগলু, 'আগে এদের হুঁশ ফিরিয়ে আনো, তারপর যা করার জলদি করো৷'


২.

শারমিন সিদ্দিকি হঠাত্‍ নিজের চারপাশ সম্পর্কে সচেতন হয়ে উঠলো৷ তার স্পষ্ট মনে আছে বিকেলবেলা স্টেশনটার কথা৷ প্রায় ফাঁকা, একজন লোক অপেক্ষা করছিলো কাছে দাঁড়িয়ে, আর বহুদূরে আরেকজন৷ ট্রেনের গুমগুম শব্দ শোনা যাচ্ছিলো৷
তারপর হঠাত্‍ আলোর ঝলকানি, গা গুলানো একটা অনুভূতি, আবছাভাবে দেখা একটা ঘিনঘিনে সরীসৃপের মতো প্রাণীর চেহারা, তার লালা গড়াচ্ছে, ওপরের দিকে খুব দ্রুত ছুটে চলা, আর এই এখন .. .. 'ওহ খোদা,' কেঁপে উঠলো শারমিন, 'এটা এখনো আছে৷ সাথে আবার আরেকটা!'

শারমিনের অসুস্থ লাগছিলো, কিন্তু ভয় সে পাচ্ছিলো না৷ আর এ ব্যাপারে তার প্রায় গর্বই হচ্ছিলো৷ তার পাশে যে লোকটি চুপচাপ মলিন একটা পাঞ্জাবী গায়ে দাঁড়িয়ে আছে, সে হচ্ছে প্ল্যাটফর্মের সেই লোকটা৷

'এরা আপনাকেও ধরে এনেছে?' জিজ্ঞেস করলো শারমিন৷ 'আর কাকে?'

স্বাধীন মিত্র নিজের হাত তুলে মাথার পাতলা চুল সমান করার চেষ্টা করলো, কিন্তু টের পেলো, মহাকাশযানের ভেতরে কোন একটা শক্তি তার এই কাজে বিরোধিতা করছে৷ হাল ছেড়ে দিয়ে সে বিষণ্ন চোখে তার পাশের সরু চেহারার মহিলার দিকে তাকালো৷ মধ্যযৌবনা, চমত্‍কার ভাবে ছাঁটা চুল, দামী পোশাক, কিন্তু এই মূহুর্তে স্বাধীনের ইচ্ছে করছে অন্য কোথাও থাকবার৷ কারো সঙ্গ পেয়েও তার ভালো লাগছে না, হোক না নারীসঙ্গ৷

সে মুখ খুললো, 'আমি জানি না ম্যাডাম৷ আমি শুধু স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে ছিলাম৷'

'আমিও তো৷'

'তারপরে একটা আলো দেখলাম, কিছু শুনিনি৷ এখন দেখি আমি এইখানে৷ মনে হয় মঙ্গল গ্রহ কিংবা এরকম কোন জায়গার প্রাণী এরা৷'

'আমারও তাই মনে হচ্ছে৷' শারমিন সজোরে মাথা ঝাঁকালো৷ 'ফ্লাইং সসার৷ আপনার ভয় করছে না?'

'না৷ ব্যাপারটা কেমন যেন, জানেন? আমার মনে হয় আমি পাগল হয়ে যাচ্ছি৷ নইলে ভয় পাবো না কেন?'

'হ্যাঁ, ব্যাপারটা অদ্ভূত৷ আমারো ভয় করছে না৷ ও খোদা, এই যে আসছে একটা! এইটা আমাকে ধরলে কিন্তু আমি একটা চিত্‍কার দেবো! দ্যাখেন এর লিকলিকে হাতগুলো৷ ঝুলে পড়া ঘিনঘিনে চামড়া, মা গো, আমার বমি পাচ্ছে!'

ভোন্দল খুব সাবধানে এগিয়ে এসে খসখসে তীক্ষ্ণ স্বরে, এতটুকুই সে অনুকরণ করতে পেরেছে, বললো, 'প্রাণীগণ! আমরা আপনাদের ক্ষতিসাধন করবো না৷ কিন্তু আপনাদেরকে দয়া করে একটু সহযোগিতা করতে হবে৷'

'আয়হায়, এটা দেখি কথা বলে!' বলে উঠলো স্বাধীন৷

'কীসের সহযোগিতা?'

'আপনারা উভয়েই৷ একজন আরেকজনের সাথে৷' বললো ভোন্দল৷

'হ্যাঁ?' স্বাধীন শারমিনের দিকে ঘুরলো৷ 'দিদি, এ কী বলছে কিছু বুঝতে পারছেন?'

ভোন্দল বললো, 'আমি বলতে চাইছি .. ..,' এই বলে সে প্রচলিত একটি সংক্ষিপ্ত শব্দ, যেটি সে ব্যবহৃত হতে শুনেছে, উচ্চারণ করলো৷

শারমিনের চেহারা লালচে হয়ে উঠলো৷ 'কী?' খনখনে গলায় চেঁচিয়ে উঠলো সে৷ ভোন্দলের সাথে অধিনায়ক জিগলুও পেট চেপে ধরলেন, যেখানে তাঁর শ্রবণযন্ত্র ব্যথায় কেঁপে উঠেছে৷

শারমিন একনাগাড়ে বকে চললো, 'আমি একজন বিবাহিত মহিলা, বুঝলেন? আমার স্বামী এখানে থাকলে বুঝতেন মজাটা৷ আর আপনি ভদ্রলোক,' মহাকাশযানের ভেতরে সেই পিচ্ছিল বাধা উপেক্ষা করে শরীর মুচড়ে স্বাধীনের দিকে ঘুরলো সে, '.. .. আপনি যে-ই হোন না কেন, যদি ভেবে থাকেন .. ..৷'

'দিদি, দিদি .. ..', স্বাধীন অস্বস্তিভরে মরিয়া হয়ে বললো, 'আমি তো আর এ ধরনের কিছু বলিনি৷ মানে, আমি কোন মহিলাকে অপমান করতে চাই না, বুঝতেই পারছেন, কিন্তু আমি, আমি নিজেও বিবাহিত, তিনটা বাচ্চা আছে আমার .. ..৷ শোনেন .. ..৷'


৩.

অধিনায়ক জিগলু বললেন, 'ঘটনাটা কী হে পরিদর্শক ভোন্দল? এদের হাউকাউ ভারি বিচ্ছিরি৷'

'ইয়ে .. ..', বিব্রত হয়ে ছোট্ট একটা বেগুনি ঝলক দেখালো ভোন্দল৷ 'এখানে আবার খানিকটা জটিল রীতিনীতি আছে৷ প্রথমে এরা দু'জনেই দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগবে৷ এতে করে নাকি পরবর্তী কার্যকলাপের তীব্রতা বাড়ে৷ এই প্রাথমিক পর্যায়ের পর এদের ত্বক অপসারিত করতে হবে৷'

'মানে? এদের ছাল ছাড়াতে হবে?'

'ঠিক তা না৷ এদের কৃত্রিম ত্বক রয়েছে, যেটা কোন রকম যন্ত্রণা ছাড়াই অপসারণ করা যায়, এবং করতে হয়৷ ক্ষুদ্রাকৃতির রূপটির ব্যাপারে এটি বিশেষভাবে প্রযোজ্য৷'

'ঠিক আছে তাহলে৷ ওদেরকে চামড়া ছাড়াতে বলো৷ কিন্তু ভোন্দল, আমার কাছে কিন্তু গোটা ব্যাপারটাই খুব ইয়ে মনে হচ্ছে৷'

'আমার কিন্তু মনে হয়, ক্ষুদ্র রূপটিকে এ কাজটি করতে বলা আমার উচিত হবে না৷ বরং আমরা গোটা রীতিটিকে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করি৷ এই যে, আমার কাছে এখানে সেই ক্রীড়াবালকের কিছু মহাকাশযাত্রার গল্প রয়েছে৷ এখানে বলা হয়েছে, জোর খাটিয়ে ত্বক অপসারণ করা হয়৷ এটার কথাই ধরুন, এখানে এই দুর্ঘটনাটির একটি বর্ণণা রয়েছে, এই যে, "সে তরুণীর তন্বী শরীর থেকে এক লহমায় সমস্ত পোশাক প্রায় ছিন্ন করে ফেললো৷ এক মূহুর্তের জন্যে সে নিজের শরীরের সাথে অনুভব করলো মেয়েটির বক্ষের উষ্ণ কাঠিন্য .. ..", এভাবেই নাকি চলতে থাকে৷ এই যে ছিঁড়ে ফেলা, এই বলপূর্বক ত্বকের অপসারণ, এটি একটি চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করে৷'

'বক্ষ?' প্রশ্ন করলেন জিগলু৷ 'আমি তোমার ঝলকের অর্থ ধরতে পারলাম না৷'

'এরা এই শব্দটির মাধ্যমে ক্ষুদ্র রূপটির দেহের সম্মুখভাগের ঊধর্্বাংশের স্ফীতিকে বোঝায়, মহামান্য অধিনায়ক৷'

'আচ্ছা৷ তাহলে এই বৃহত্‍ রূপটিকে বলো ক্ষুদ্র রূপটির ত্বক ছিঁড়ে ফেলতে৷ ওহ্, কী বীভত্‍স ব্যাপার!'

ভোন্দল স্বাধীনের দিকে ঘুরলো৷ 'মহাশয়,' বললো সে, 'আপনি এক লহমায় এই তরুণীর তন্বী শরীর থেকে সমস্ত পোশাক প্রায় ছিন্ন করুন৷ এ কাজের জন্য আমি আপনার বাঁধন খুলে দিচ্ছি৷'

শারমিনের চোখ বড় বড় হয়ে গেলো, রাগের চোটে স্বাধীনের দিকে মুচড়ে ঘুরলো সে৷ 'খবরদার বলছি! খবরদার, আমাকে যদি ছুঁয়েছেন তো .. ..! লম্পট, জানোয়ার কোথাকার!'

'আমি?' স্বাধীন অভিযোগের সুরে বললো৷ 'আমার তো এই ধরনের কোন মতলব নেই৷ আপনার কী ধারণা, আমি যেখানে সেখানে জামাকাপড় ছিঁড়ে বেড়াই? দেখেন দাদা,' ভোন্দলের দিকে ঘুরলো সে, 'আমার ঘরে বউবাচ্চা আছে৷ আমার বউ যদি টের পায় আমি এই সব কিছু করেছি, আমার বারোটা বাজিয়ে ছাড়বে৷ আপনি জানেন আমি কোন মেয়ের দিকে তাকালেই আমার বউ কেমন ব্যাভার করে? শোনেন তাহলে .. ..৷'

'এই প্রাণীটি কি এখনও দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগছে?' জিগলু অধৈর্য হয়ে প্রশ্ন করলেন৷

'আপাতদৃষ্টিতে তাই মনে হচ্ছে৷' বললো ভোন্দল৷ 'অন্যরকম পরিবেশে, বুঝতেই পারছেন, এদের সহযোগিতার পর্বটি বিলম্বিত হওয়া স্বাভাবিক৷ তবে যেহেতু আমি জানি যে আপনার কাছে এ ব্যাপারটি অপ্রীতিকর, তাই আমি এই রীতিটি নিজেই সমাধা করবো৷ ক্রীড়াবালকের কিছু গল্পে প্রায়ই বলা হয় যে একটি অন্য গ্রহের প্রাণী এসে ক্ষুদ্র রূপটির ত্বক উন্মোচন করে৷ এই যে দেখুন এখানে .. ..,' নোটবইয়ের পাতা উল্টাতে লাগলো সে৷ 'তারা একটি বিচিত্র জীবের বর্ণণা দিয়েছে৷ এই গ্রহের প্রাণীদের বিচারবুদ্ধির বিশেষ অভাব আছে, বুঝতেই পারছেন৷ তারা আমাদের মতো রূপবান লালা-আবৃত ব্যক্তির বর্ণণা দিতে অক্ষম৷'

'আরে জলদি করো৷ সারা দিন লাগিয়ে দিচ্ছো যে!' খেঁকিয়ে উঠলেন জিগলু৷

'জ্বি, অধিনায়ক৷ এখানে বলছে যে, বহিরাগত প্রাণীটি "মেয়েটির দিকে এগিয়ে গেলো৷ সে প্রাণপণে চিত্‍কার করতে করতে সেই দানবের আলিঙ্গনে হারিয়ে গেলো৷ এলোমেলো নখরাঘাতে তার ছোট্ট জামাটি ছিঁড়ে টুকরো টুকরো হয়ে গেলো৷" আপনি বুঝতেই পারছেন, এদের ত্বক যখন অপসারিত হয়, তখন এরা উত্তেজিত হয়ে উচ্চমাত্রার শব্দ উত্‍পন্ন করে৷'

'যাও তাহলে ভোন্দল, এটার ত্বক অপসারণ করো৷ কিন্তু দোহাই লাগে, শব্দ করতে দিও না৷ আমার সারা শরীর কাঁপছে৷'

ভোন্দল ভারি বিনয়ের সাথে শারমিনকে বললো, 'যদি কিছু মনে না করেন .. ..৷' তার একটি চামচসদৃশ আঙুল শারমিনের শাড়ির দিকে এগিয়ে গেলো৷ শারমিন প্রাণপণে মোচড়ামুচড়ি করতে লাগলো৷ 'ছোঁবে না, ছোঁবে না বলছি! তুমি এই শাড়িতে ময়লা মাখিয়ে দেবে! দ্যাখো, এটার দাম সাড়ে চার হাজার টাকা, গুলতামিরা থেকে কেনা! দূরে সরো, রাক্ষস কোথাকার! এর চোখগুলো দ্যাখেন!' হাঁপাতে হাঁপাতে ভোন্দলকে এড়িয়ে যাওয়ার প্রাণপণ প্রচেষ্টা করছে শারমিন৷ 'একটা চটচটে, মাছির মতো চোখওয়ালা রাক্ষস এইটা! এই শোন, আমি নিজেই খুলছি৷ খবরদার তুমি এটা ছোঁবে না!'

শাড়িটা খুলতে খুলতে শারমিন চোখ গরম করে স্বাধীনের দিকে তাকালো, 'খবরদার আপনি এদিকে তাকাবেন না!'

স্বাধীন কাঁধ ঝাঁকিয়ে চোখ বুঁজলো৷

শারমিন শাড়িটা খুলে দাঁড়ালো৷ 'এইবার? ঠিক আছে?'

অধিনায়ক জিগলু অসন্তুষ্ট ভঙ্গিতে আঙুল নাড়লেন৷ 'এটাই কি বক্ষ? তাহলে অন্য প্রাণীটি আরেক দিকে মাথা ঘুরিয়ে রেখেছে কেন?'

'দ্বিধা, দ্বিধা৷' জবাব দিলো ভোন্দল৷ 'আর তাছাড়া, বক্ষ এখনো আবৃত৷ অন্যান্য ত্বকও অপসারিত করতে হবে৷ পুরোপুরি প্রকাশিত অবস্থায় বক্ষ অত্যন্ত প্রেরণাদায়ক৷ এদের সাহিত্যে একে সবসময় আইভরি প্রাসাদ, কিংবা শুভ্র গোলক, কিংবা এমন আরো ভঙ্গিতে বর্ণণা করা হয়ে থাকে৷ আমার কাছে এর রৈখিক চিত্র রয়েছে, ক্রীড়াবালকের সম্মুখ অংশ থেকে সংগৃহীত৷ আপনি পরীক্ষা করলে দেখতে পাবেন, প্রায় প্রতিটি উদাহরণেই একটি প্রাণী তার বক্ষ আংশিক কিংবা পূর্ণ উন্মোচিত করে উপস্থিত৷'

অধিনায়ক চিন্তিত ভঙ্গিতে ছবিগুলো পর্যবেক্ষণ করে শারমিনের দিকে ঘুরলেন৷ 'আইভরি কী বস্তু?'

'জ্বি, এই ঝলকটিও আমার আবিষ্কৃত৷ এদের গ্রহের একটি আংশিক বুদ্ধিমাণ প্রাণীর দেহের একটি কঠিন অংশকে এরা এই নামে ডাকে৷'

'আহ৷' জিগলু সন্তুষ্টির একটি গাঢ় সবুজ ঝলক দেখালেন৷ 'এবার বোঝা যাচ্ছে৷ এই ক্ষুদ্র প্রাণীটি এই গ্রহের যোদ্ধা গোষ্ঠীর একজন, আর এই কঠিন অংশ দিয়ে সে তার শত্রুপক্ষকে ঘায়েল করতে পারে৷'

'না না না৷ আমার জানামতে, এর এই অংশটি যথেষ্ঠ পেলব৷' ভোন্দল কথা বলতে বলতে তাদের মূল আলোচ্য বিষয়ের দিকে একটি হাত বাড়িয়ে দিলো, শারমিন চিত্‍কার করে পিছিয়ে গেলো৷

'তাহলে এর আর কী কাজ থাকতে পারে?'

'আমার ধারণা,' ভোন্দল খানিকটা ইতস্তত করে বললো, 'এদের নূতনের পুষ্টিসাধনের উদ্দেশ্যে এগুলো ব্যবহৃত হয়৷'

'এদের নূতনেরা এসে এগুলোকে খেয়ে ফেলে?' জিগলু একেবারে মুষড়ে পড়লেন৷

'ঠিক তা না৷ এই বস্তু একটি বিশেষ পদার্থ উত্‍পন্ন করে যা নূতনেরা গ্রহণ করে থাকে৷'

'একটি জীবিত দেহ থেকে পদার্থ গ্রহণ? ছিহহহ৷' অধিনায়ক তিন হাতে তাঁর মাথা ঢাকলেন, তাঁর তৃতীয় হাতটি শরীরের ভেতর থেকে এতো দ্রুত বেরিয়ে এলো যে ভোন্দল আরেকটু হলেই ছিটকে পড়ছিলো৷

'একটা ঘিনঘিনে তিনহাতওয়ালা রাক্ষস!' বললো শারমিন৷

'ঠিক৷' সমর্থন যোগালো স্বাধীন৷

'শোনেন ভদ্রলোক, চোখগুলোকে সামলে রাখেন!'

'আমি কিছু দেখছি না দিদি৷'

ভোন্দল আবার এগিয়ে এলো৷ 'মহাশয়া! আপনি কি বাকি অংশগুলো অপসারণ করবেন?'

শারমিন মহাকাশযানের ভেতরে যতটুকু সম্ভব শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে ঘোষণা করলো, 'কক্ষনো না!'

'তাহলে আপনি যদি চান, আমি এ কাজটি সম্পন্ন করতে পারি৷' বললো ভোন্দল৷

'খবরদার ছোঁবে না! খোদার দোহাই, না! ছি, কী লালা মাখানো সারা শরীরে! আচ্ছা ঠিক আছে, খুলছি৷' শারমিন বিড়বিড় করতে করতে চোখ গরম করে স্বাধীনের দিকে তাকিয়ে অবশিষ্ট যা কিছু আছে খুলতে লাগলো৷


৪.

'কিছুই তো হচ্ছে না৷' গভীর অসন্তোষ নিয়ে বললেন জিগলু৷ 'আমার তো মনে হচ্ছে নমুনা হিসেবে প্রাণী দু'টো একেবারেই খুঁতিয়াল৷'

ভোন্দলের মনে হলো, অধিনায়ক তার কাজের বদনাম করছেন৷ 'আমি আপনাকে একেবারেই নিখুঁত দু'টি প্রাণী এনে দিয়েছি৷ এদের মধ্যে আপনি কী সমস্যা খুঁজে পেলেন?'

'কই, এই বক্ষ জিনিসটা তো কোন প্রাসাদ বা গোলকের মতো মনে হচ্ছে না৷ তুমি নিজেই আমাকে এই জিনিসগুলোর ছবি দেখিয়েছো, কাজেই আমি জানি তারা দেখতে কেমন৷ ছবি দেখে মনে হচ্ছে এই গোলক বেশ বৃহদাকৃতির৷ আর চেয়ে দেখো এর দিকে, গোলক তো দূরের কথা, কিছু শুষ্ক কোষের সমন্বয় মাত্র৷ আবার খানিকটা রঙচটাও বটে৷'

'কী যে বলেন!' বললো ভোন্দল৷ 'একটু এদিক ওদিক তো হবেই৷ হাতের তিন আঙুল কি কখনো সমান হয়? দাঁড়ান, আমি বরং প্রাণীটিকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করি৷'

ভোন্দল শারমিনের দিকে ঘুরে প্রশ্ন করলো, 'মহাশয়া, আপনার বক্ষ কি ত্রুটিযুক্ত?'

শারমিনের চোখ বড় বড় হয়ে গেলো, মুখ হাঁ করে কিছুক্ষণ শ্বাস নেয়া ছাড়া আর কিছু করতে পারলো না সে৷ অবশেষে সে কোনমতে বললো, 'আচ্ছা! .. .. আমি মাধুরী দীক্ষিত কিংবা এলিজাবেথ টেইলর নই, সত্যি কথা, কিন্তু আমার সবকিছু ঠিকঠাক আছে! ও খোদা, আমার স্বামী যদি এখন এখানে থাকতো!' সে স্বাধীনের দিকে ঘুরে দাঁড়িয়ে আবার শুরু করলো, 'শুনুন আপনি! এই সর্দিমাখা রাক্ষসটাকে বুঝিয়ে বলুন তো, যে আমার কোন .. .. কোন সমস্যা নেই!'

'ইয়ে, দিদি,' স্বাধীন কোমল গলায় বললো, 'আমি কিন্তু কিছু দেখছি না৷'

'নিশ্চয়ই নিশ্চয়ই, আপনি তো কিছুই দেখছেন না৷ সেই তখন থেকে আড়চোখে তাকিয়ে আছেন! আর ঢং করতে হবে না, চোখ খুলে একজন ভদ্রমহিলাকে সাহায্য করার চেষ্টা করুন, যদি আপনি নিজে একজন ভদ্রলোক হয়ে থাকেন .. .. যা আপনি নন!'

'ঠিক আছে, ঠিক আছে৷' স্বাধীন আড়চোখে টানটান হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা শারমিনের দিকে তাকালো৷ 'আমি আসলে এমন নাজুক পরিস্থিতির সাথে নিজেকে জড়াতে চাই না, তবে আমার মনে হচ্ছে আপনার কোন সমস্যা নেই৷'

'মনে হচ্ছে? আপনি কি কানা নাকি? জানেন, আমি একসময় মিস রাজশাহী প্রতিযোগিতায় রানার আপ হয়েছিলাম? আর জানেন কেন রানার আপ হয়েছিলাম? কারণ আমার কোমরে একটু সমস্যা ছিলো, অন্য কোথাও নয় .. ..৷'

স্বাধীন তাড়াতাড়ি বললো, 'আচ্ছা, আচ্ছা .. .. আপনার কোন সমস্যাই নেই৷ সত্যি, আপনি .. .. বেশ ভালো৷' স্বাধীন ভোন্দলের দিকে তাকিয়ে জোরেসোরে মাথা ঝাঁকালো৷ 'ঠিক আছে, এনার সবকিছু ঠিক আছে৷ আমি অবশ্য এ ব্যাপারে এমন কোন বিশেষজ্ঞ নই, তবে এনার কোন কিছু নিয়ে আমার কোন সমস্যা নেই৷'

শারমিন শ্বাস ফেলে ঢিল দিয়ে দাঁড়ালো৷

ভোন্দল হাঁপ ছেঁড়ে বাঁচলো৷ সে জিগলুর দিকে ফিরে বললো, 'বৃহত্‍ রূপটি আগ্রহ প্রকাশ করেছে, মহামান্য অধিনায়ক৷ আমার মনে হয় প্রেরণাশক্তি কাজ শুরু করেছে৷ এখন শুধু শেষ পর্বটি বাকি৷'

'সেটা আবার কি?'

'আমি এটার জন্যে কোন ঝলক খুঁজে পাচ্ছি না, অধিনায়ক৷ এদের একজনের কথা বলা আর খাদ্যগ্রহণের অঙ্গটিকে অপরজনের একই অঙ্গের ওপর স্থাপিত করা হয়৷ আমাদের ঝলকে একে বলা যেতে পারে : চুম্বন৷'

'আমি কি বমি করেই ফেলবো?' গজগজ করতে লাগলেন জিগলু৷

'এটাই হচ্ছে সহযোগিতার চরম পর্যায়৷ এদের সাহিত্যের সব গল্পে, ত্বক অপসারণের পর দেখা যায় এরা একে অপরকে তাদের হাত পা দিয়ে জাপটে ধরে, এবং আমাদের ভাষায় বলতে গেলে "জ্বলন্ত চুম্বন" করতে থাকে৷ এই যে দেখুন, এখানে উদাহরণ রয়েছে, "সে মেয়েটিকে জাপটে ধরলো, তার ঠোঁট মিশে গেলো মেয়েটির ঠোঁটের সাথে৷'

'কে জানে, হয়তো একটা প্রাণী আরেকটাকে ধরে খেয়ে ফেলছিলো৷' বললেন অধিনায়ক৷

'মোটেও না৷' ভোন্দল খানিকটা অধৈর্য হয়ে বললো৷ 'ওটা ছিলো জ্বলন্ত চুম্বন৷'

'জ্বলন্ত? কী বলতে চাও তুমি? দহন প্রক্রিয়া ঘটতে থাকে নাকি?'

'আমার তা মনে হয় না৷ আমার মনে হয় তাপমাত্রা বৃদ্ধির ব্যাপারটিকে তারা এভাবে প্রকাশ করে৷ আমার ধারণা, তাপমাত্রা এভাবে যত বৃদ্ধি পায়, নূতনের উত্‍পাদনও তত উত্‍কর্ষ হয়৷ এখন যখন বৃহত্‍ রূপটি ঠিকমতো প্রেরণা পেয়েছে, সে ক্ষুদ্র রূপটির মুখে মুখ রাখলেই নূতনের উত্‍পাদন করতে পারবে৷ এই প্রক্রিয়াটি ছাড়া নূতনের জন্ম দেয়া সম্ভব নয়৷ এটাই সেই সহযোগিতা যেটার কথা আমি এতক্ষণ বলছি৷'

'ব্যস, এটাই? কেবল এটুকুই .. ..?' জিগলু হাতের ইশারায় ব্যাপারটা বোঝানোর চেষ্টা করলেন, কিন্তু ঝলকে কথাটা প্রকাশ করতে তাঁর রুচিতে বাধলো৷

'এটুকুই৷' বললো ভোন্দল৷ 'আমি কোন গল্পেই, এমনকি "ক্রীড়াবালক"-এও আমি এর পর নূতনের জন্ম সংক্রান্ত অন্য কোন শারীরিক ক্রিয়ার উল্লেখ পাইনি৷ তবে কখনো কখনো গল্পে চুম্বনের পর তারা কিছু কিছু চিহ্ন ব্যবহার করে, যেমন ছোট ছোট কয়েকটা বিন্দু .. .. তবে আমার ধারণা এই বিন্দুগুলো আরো চুম্বনের প্রতীক৷ প্রতিটি চুম্বনের জন্যে একটি করে বিন্দু, যখন তারা একাধিক নূতনের জন্ম দিতে চায়৷'

'আপাতত দয়া করে একটার ব্যবস্থা করো৷ এখনি৷'

'নিশ্চয়ই, মহামান্য অধিনায়ক৷'


৫.

ভোন্দল যথেষ্ঠ গাম্ভীর্য নিয়ে বললো, 'মহাশয়, আপনি কি দয়া করে এনাকে চুম্বন করবেন?'

স্বাধীন বললো, 'দ্যাখেন, আমি নড়তে পারছি না৷'

'অবশ্যই, আমি আপনাকে মুক্ত করে দিচ্ছি৷'

'ইনি এই ব্যাপারটা পছন্দ না-ও করতে পারেন৷'

শারমিন ফুঁসে উঠলো, 'আপনি আপনার জান বাজি ধরতে পারেন, আমি ব্যাপারটা পছন্দ করবো না৷ আপনি খবরদার কাছে আসবেন না৷'

'ঠিক আছে৷ কিন্তু আমি এদের কথা না শুনলে এরা কী করবে? দ্যাখেন, আমি এদেরকে চটাতে চাই না৷ আমরা এমনিই .. .. মানে, বুঝলেন তো .. .. লোক দেখানো পাপ্পি দিতে পারি৷'

শারমিন ইতস্তত করলো, সাবধানতার কারণটা বুঝতে পারছে সে৷ 'ঠিক আছে৷ কিন্তু খবরদার, কোন ফাজলামি করবেন না৷ আমার কিন্তু এসব করার অভ্যেস একদম নেই৷'

'আমি জানি৷ কিন্তু এসব তো আর আমার মাথা থেকে বেরোয় নি৷ আপনি নিশ্চয়ই তা মানবেন৷'

শারমিন চটে গিয়ে বিড়বিড় করতে লাগলো, 'রাক্ষসের গুষ্টি যত! এরা নিজেদের কী মনে করে আল্লাই জানে৷ কেমন লোকজনকে হুকুম দিয়ে বেড়াচ্ছে৷'

স্বাধীন একটু কাছে এগিয়ে গেলো৷ 'ইয়ে, যদি কোন সমস্যা না থাকে, তো .. ..৷' সে আনাড়ির মতো শারমিনের খোলা কাঁধে হাত রেখে খুব সাবধানে মুখ বাড়ালো৷

শারমিনের কাঁধ আড়ষ্ট হয়ে উঠলো৷ স্বাধীনের ঠোঁট তার ঠোঁট স্পর্শ করলো৷

অধিনায়ক জিগলু চটে উঠে ঝলকাতে থাকলেন৷ 'কই, আমি তো তাপমাত্রার কোন বৃদ্ধি টের পাচ্ছি না৷' তাঁর তাপসংবেদী শুঁড় মাথার ওপর সটান খাড়া হয়ে দাঁড়িয়ে কাঁপতে লাগলো৷

'আমিও না৷' খানিকটা মুষড়ে পড়ে বললো ভোন্দল৷ 'কিন্তু সায়েন্স ফিকশনগুলোতে যা লেখা আছে, তা-ই তো ঘটছে৷ আমার মনে হয়, এর হাত আরো প্রসারিত হতে হবে .. .. আহ, এই তো৷ দেখছেন, ব্যাপারটা কাজ শুরু করে দিয়েছে৷'

নিজের অজান্তেই স্বাধীনের হাত শারমিনের কোমল শরীরের দিকে নেমে এলো৷ শারমিন কিছুক্ষণের জন্যে তার সাথে মিশে থেকে হঠাত্‍ মহাকাশযানের সেই অদৃশ্য বাধা থেকে ঝটকা মেরে নিজেকে ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করলো৷

'ছাড়ুন বলছি৷' স্বাধীনের ঠোঁটের চাপে শারমিনের কথা জড়িয়ে গেলো৷ সে হঠাত্‍ কামড় বসালো, স্বাধীন জোরে কাতরে উঠে নিজেকে সরিয়ে নিলো৷ নিজের ঠোঁট চেপে ধরলো সে, তারপর আঙুলে লেগে যাওয়া রক্তের দিকে তাকালো৷

'এটা কী করলেন বলেন তো?' অভিযোগের সুরে বললো সে৷

শারমিন বললো, 'আপনি তো আমাকে পাপ্পির কথা বলেছিলেন, তার জায়গায় কী শুরু করেছিলেন এটা? কেমন লম্পট আপনি? ওহ, কেমন জায়গায় এসে পড়েছি আমি? চারদিকে শুধু লুচ্চা আর রাক্ষস!'

অধিনায়ক জিগলু হলুদ আর নীল ঝলকাতে লাগলেন৷ 'হয়ে গেছে? আমাদের আর কতক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে?'

'আমার তো মনে হয় এটা খুব অল্প সময়ের মধ্যেই হয়ে গেছে৷ সারা বিশ্বেই তো, যখন আপনার কুঁড়ি ফোটানোর দরকার হয়, তখন আপনি কুঁড়ি ফোটান৷ অপেক্ষার কিছু নেই এতে৷'

'তাই নাকি? তুমি এতক্ষণ যেসব জঘন্য ধ্যাষ্টামোর কথা আমাকে ব্যাখ্যা করে শোনালে, আমি আর ইহজীবনে কুঁড়ি ফোটাচ্ছি না৷ এখন জলদি কাজ শেষ করো৷'

'জ্বি অধিনায়ক, এখনি করছি৷'

কিন্তু সময় বয়ে চললো৷ অধিনায়কের ঝলক আস্তে আস্তে গাঢ় কমলার দিকে চলে গেলো, আর ভোন্দলের ঝলক প্রায় নিবু নিবু হয়ে এলো৷

একসময় ইতস্তত করে ভোন্দল প্রশ্ন করলো, 'মাফ করবেন, মহাশয়া, আপনি কুঁড়ি ফোটাবেন কখন?'

'আমি কী ফোটাবো?'

'নূতনের জন্ম দেবেন কখন?'

'আমার একটা বাচ্চা আছে৷'

'আমি বলতে চাইছি, এখানে নূতনের জন্ম দেবেন কখন?'

'আমি বলতে পারি না৷ আরেকটা বাচ্চা নেয়ার ব্যাপারে আমি চিন্তা ভাবনা করিনি৷'

'কী বলছে, কী বলছে?' জানতে চাইলেন জিগলু৷ 'বলছে কী প্রাণীটা?'

'মনে হচ্ছে,' জবাব দিলো ভোন্দল, 'প্রাণীটি এখন নূতনের জন্ম দেয়ার ব্যাপারে আগ্রহী নয়৷'

অধিনায়কের ঝলকের রঙ উজ্জ্বল হয়ে ঝলসে উঠলো৷ 'তুমি কি জানো, পরিদর্শক, আমার কী মনে হচ্ছে? আমার মনে হচ্ছে, তোমার মনটা অসুস্থ এবং নোংরা৷ এই প্রাণী দু'টির কিছুই হয়নি৷ এদের মধ্যে কোন সহযোগিতাও হচ্ছে না৷ কোন নূতনের জন্মও এরা দিচ্ছে না৷ আমার মনে হচ্ছে, এরা দু'টো ভিন্ন প্রাণী, এবং তুমি আমার সাথে বাজে একটা মশকরা করার চেষ্টা করছো৷'

'কিন্তু, অধিনায়ক .. ..৷' বলে উঠলো ভোন্দল৷

'আর কিন্তু অধিনায়ক কপচাতে যেও না!' বললেন জিগলু৷ 'অনেক হয়েছে, আর না৷ তুমি আমাকে জ্বালিয়ে মেরেছো, আরেকটু হলে গা গুলিয়ে আমার বমি এসে যাচ্ছিলো, কুঁড়ি ফোটানোর ব্যাপারে আমার মনটাকেই বিষিয়ে দিয়েছো তুমি, আর আমার সময় নষ্ট করেছো৷ তুমি আসলে চেষ্টা করছো খবরের কাগজে নাম তুলে বাহবা কুড়োতে, সেটা তুমি যাতে না পাও তার জন্যে যা করতে হয় আমি করবো৷ এখনি এই প্রাণীগুলোকে আমার চোখের সামনে থেকে দূর করো৷ এগুলোর ত্বক ফিরিয়ে দাও, আর যেখানে তাদেরকে পেয়েছো সেখানে রেখে এসো৷ আমার উচিত এতক্ষণ এসবের পেছনে অভিযানের যতখানি পয়সা নষ্ট হয়েছে সেটা তোমার বেতন থেকে কেটে রাখা৷'

'কিন্তু, অধিনায়ক .. ..৷'

'যাও বলছি৷ এদেরকে ঠিক আগের জায়গায়, আগের সময়ে ফিরিয়ে দিয়ে এসো৷ এই গ্রহে এর পর কেউ পা ফেরুক, তা-ও আমি চাই না৷ আর এ ব্যাপারে আমি ব্যবস্থা নেবো, যাতে কেই পা ফেলতে না আসে৷' জিগলু কড়া চোখে আবার চাইলেন ভোন্দলের দিকে৷ 'একই প্রাণী, দু'টি রূপ, বক্ষ, চুম্বন, সহযোগিতা .. .. বাহ্! তুমি একটি আকাট মূর্খ, পরিদর্শক, একটা মহা বেকুব .. .. আর সবচেয়ে বড় কথা, একটা মহা খাচ্চর, খাচ্চর, খাচ্চর লোক৷'

আর কোন তর্ক চললো না৷ ভোন্দল কাঁপা হাতে প্রাণীগুলোকে ফিরিয়ে দিয়ে আসার কাজ শুরু করলো৷


৬.

তারা দু'জন স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে চারদিকে বিহ্বলের মতো তাকাতে লাগলো৷ প্রায় সন্ধ্যে হয়ে এসেছে, দূরে ট্রেনের গুমগুম শোনা যাচ্ছে৷

শারমিন দ্বিধা নিয়ে বললো, 'আচ্ছা, এগুলো কি সত্যি সত্যি হলো?'

স্বাধীন মাথা নাড়লো, 'আমার মনে আছে৷'

শারমিন বললো, 'আমরা কাউকে কিছু বলতে পারবো না৷'

'অবশ্যই না৷ কেউ শুনলে আমাদের পাগল বলবে৷ বুঝতে পারছেন নিশ্চয়ই?'

'হুম৷ ঠিক আছে তাহলে৷' শারমিন একটু সরে দাঁড়ালো৷

স্বাধীন বললো, 'শোনেন৷ আমি খুবই দুঃখিত, আপনাকে এভাবে বিব্রত করার জন্য৷ আসলে আমার কিছু করার ছিলো না৷'

'না না, ঠিক আছে, আমি জানি৷' শারমিন মাটির দিকে চোখ নামালো৷ ট্রেনের শব্দ আরো বেড়ে গেছে৷ 'মানে, আমি বলতে চাইছি, আপনার কোন সমস্যা ছিলো না৷ .. .. মানে, আপনাকে বেশ ভালোই লাগছিলো আর কি, কিন্তু ওভাবে বলতে লজ্জা লাগছিলো আমার৷'

শারমিন হঠাত্‍ হাসলো একটু, 'না না, ঠিক আছে৷'

'তাহলে চলেন, আমি আপনাকে অন্তত এক কাপ কফি খাওয়াই, তাতে যদি আপনি একটু স্বস্তি বোধ করেন৷ আমার বউ জানে বাড়ি ফিরতে আমার আরো অনেক দেরি হবে, কাজেই .. ..৷'

'তাই? এদিকে আমার স্বামী একটু বাইরে গেছেন অফিসের কাজে৷ আমা ছেলেটাও বেড়াতে গেছে আমার মায়ের কাছে৷ আমারও বাসায় কেউ নেই .. ..৷'

'তাহলে তো ঠিকই আছে৷ আমরা তো একরকম পরিচিত হয়েই গেলাম৷'

ট্রেনটা এসে পৌঁছালো, কিন্তু তারা উল্টোদিকে ঘুরলো, সরু সিঁড়ি বেয়ে আবার রাস্তার দিকে এগোলো দু'জন৷ অবশ্য কফি নয়, তারা দু'জন দু'টো ককটেল নিয়ে বসলো৷ তারপর এই ভর সন্ধ্যেয় স্বাধীন কিছুতেই একা একা শারমিনকে বাসায় ফিরতে দিলো না, নিজে এগিয়ে দিতে শারমিনের দরজা পর্যন্ত গেলো৷ আর ভদ্রতাবশত শারমিন স্বাধীনকে কিছুক্ষণের জন্যে নিজের বাড়িতে আমন্ত্রণ জানালো৷


৭.

এদিকে, মহাকাশযানের ভেতরে, হতাশ ভোন্দল তার বক্তব্য প্রমাণের জন্যে একটা শেষ চেষ্টা করে যাচ্ছিলো৷ অধিনায়ক জিগলু যখন মহাকাশযানের যাত্রার জন্যে প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তখন ভোন্দল তারা দূরদর্শন যন্ত্রের পর্দার সামনে বসে তার নমুনা দু'টির ওপর নজর রাখছিলো৷ শারমিনের অ্যাপার্টমেন্টে সে শারমিন আর স্বাধীনের ওপর ফোকাস করা মাত্রই তার শুঁড় সটান দাঁড়িয়ে গেলো৷ রঙধনুর সাত রঙে সে ঝলকাতে লাগলো, 'অধিনায়ক! মহামান্য অধিনায়ক! দেখুন এরা এখন কী করছে!'

কিন্তু ঠিক তখনই মহাকাশযান সময়স্থাণুতা ভেঙে নক্ষত্রবেগে যাত্রা শুরু করলো৷



1 comment:

  1. দুর্দান্ত হয়েছে!

    ReplyDelete

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।