Wednesday, June 14, 2006

টিনটিন


আমি টিনটিন প্রথম হাতে পেয়েছিলাম যখন তখন আমি ক্লাস টু-তে পড়ি৷ ট্রেনে চড়ে যাচ্ছিলাম ঢাকা থেকে সিলেট৷ বাংলা মাধ্যমের ছাত্র আমি, ক্লাস টুতে অল্পস্বল্প ইংরেজি পারি ... টিনটিনের রসাস্বাদনের উপযোগী ইংরেজি শেখা তখনও অনেক দূরের কথা৷ সেনাবাহিনীর এক অফিসার বসেছিলেন উলটোদিকের বেঞ্চে, তিনি তন্ময় হয়ে পড়ছিলেন টিনটিন ইন আমেরিকা, আমাকে অনেকক্ষণ ধরে ছোঁচার মতো জুলজুলিয়ে তাকিয়ে থাকতে দেখে তিনি আমাকে সেটা গছিয়ে দিয়ে আমার ভাইয়ের সাথে গল্প জুড়ে দিলেন৷ আমি ছবি দেখেই মুগ্ধ, কাহিনী আঁচ করার মতো বুদ্ধি পাকেনি তখনও৷ কিন্তু টিনটিন একটা ছাপ রেখে গেলো মনের মধ্যে৷

এরপর অনেক বছর কেটে গেছে, ক্লাস সেভেনে পড়ি, ইংরেজি শেখার চাপ তখন বর্তমান৷ আমার বড় ভাই ঢাকা থেকে ফিরেছেন ছুটিতে, সাথে একখন্ড টিনটিন, দ্য ক্যালকুলাস অ্যাফেয়ার৷ আমি সারাদিন শুয়ে শুয়ে পড়লাম সেটা৷ কিছু না বুঝলে ভাইয়াকে গিয়ে পাকড়াও করতাম৷ এভাবে প্রশ্নঘন এক সেশনে ক্যালকুলাস অ্যাফেয়ার হজম করলাম৷ আমি ততক্ষণে টিনটিনের ভক্ত৷

এরপর ভাইয়া যখনই ছুটিতে আসতো, একটা করে টিনটিন জুটতো আমার কপালে৷ এর পরেরটা ছিলো টিনটিন ইন টিবেট, আমার খুব প্রিয়৷ এখনও মাঝে মাঝে বার করে পড়ি, ঘ্রাণ নিই, আমার এগারো বছর বয়সটা চোখের সামনে ভেসে ওঠে৷

টিনটিন আমি পড়েছি অনেক অপেক্ষা করে৷ কয়েক মাস পর পর একটা হাতে পাই, ফট করে পড়ে ফেলি, পড়তে থাকি বারবার৷ ক্লাস নাইনে যখন পড়ি তখন একবার হাম হলো, পরীক্ষা বাদ দিয়ে বাসায় শুয়ে শুয়ে হামের যন্ত্রণায় আমি অস্থির, আমার যন্ত্রণায় বাবামাবোন অস্থির, তখন একদিন আমার নামে একটা পার্সেল এলো বাসায়৷ খুলে দেখি ভাইয়া পাঠিয়েছে, খামের ভেতরে দ্য রেড সী শার্কস আর রেড র্যাকহ্যামস ট্রেজার৷ ইয়াহু! রেড সী শার্কস তো একখন্ড, কিন্তু রেড র্যাকহ্যামস ট্রেজারের পর দ্য সিক্রেট অব দ্য ইউনিকর্ন পড়তে না পেয়ে আমার পেট ফাঁপতে লাগলো৷ সেটা আবার হাতে পেলাম বহুদিন পর, কী যে যন্ত্রণা! হামও এর কাছে কিছু না৷

এর পর এক এক করে টিনটিন পড়ে শেষ করতে করতে আমার এসএসসি পরীক্ষা ঘনিয়ে এলো৷ শেষ টিনটিন তিনটা কিনেছিলাম নিজের পয়সায়, শিশু পুরস্কার পেয়েছিলাম (যদিও শিশু আর ছিলাম না তখন, দামড়া হয়ে গিয়েছিলাম, বাংলাদেশে এই এক আপদ), টিএডিএ হাতে পেয়ে তত্‍ক্ষণাত্‍ টিনটিন কিনে পড়ে শেষ করলাম৷

এর পর অ্যাসটেরিক্স পড়া শুরু করেছি (অনেক দেরিতে, এখনও বেশ কয়েকটা পড়া বাকি), ফরাসী শিখতে গিয়ে আলিয়ঁস ফ্রঁসেজে ফরাসীতে পড়েছি আরেক অনবদ্য কমিক সিরিজ, লাকি লু্যক, কিন্তু টিনটিনের স্বাদ ভুলিয়ে দেবার মতো কিছু পাইনি৷ জর্জ রেম্যাঁকে ধন্যবাদ জানাই আবারও৷

No comments:

Post a Comment

রয়েসয়েব্লগে মন্তব্য রেখে যাবার জন্যে ধন্যবাদ। আপনার মন্তব্য মডারেশন প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবে। এর পীড়া আপনার সাথে আমিও ভাগ করে নিলাম।